অন্ডালে নিঁখোজ শিশুর রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার, পুলিশের ভূমিকায় উঠলো প্রশ্ন।

গত চারদিন ধরে নিখোঁজ ছিলো এক শিশু বয়স সাত বছর। অবশেষে বাড়ির পাশের জঙ্গল থেকে উদ্ধার হল ওই শিশুর ক্ষত-বিক্ষত রক্তাক্ত দেহ।
অণ্ডালে রবিবার সকালে এই মৃতদেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে খবর, মৃত শিশুটির নাম সৌরভ বাউড়ি।
দুর্গাপুরের অণ্ডালের মাধবপুর কয়লাখনি অঞ্চলে থাকত সে। গত বুধবার হঠাৎই নিখোঁজ হয়ে যায় শিশু টি। পরিবারের তরফ থেকে থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করা হয়। তারপর থেকেই পুলিস খোঁজার কাজ শুরু করেন । অবশেষে আজ তার খোঁজ পাওয়া গেল ।খোঁজার কাজ শুরু করেও জীবিত অবস্তায় পায়নি শিশুর দেহ। বাড়ির পাশেরই এক জঙ্গল থেকে মৃত সৌরভের ক্ষতবিক্ষত রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার করলো পুলিস। পুলিশ এসে পুরো জায়গা ঘিরে ফেলে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে অণ্ডাল থানার পুলিশ। দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনারটের ডেপুটি পুলিশ সুপার অভিষেক গুপ্তার নেতৃত্বে বিরাট পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থল ঘিরে ফেলে। আনা হয় স্নিফার ডগ।

পরিবারের সুত্রে জানা যায় গত বুধবার দুপুরে খেলতে বেরোয় সৌরভ। বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা হয়ে গেলেও বাড়ি ফেরে না সৌরভ তারপরই খোঁজাখুঁজি শুরু করে পরিবারের লোকেরা। রাতভর খোঁজাখুঁজির পরেও সৌরভের সন্ধান না পেয়ে বৃহস্পতিবার থানায় জানান পরিবারের লোক, তবে তিন দিন কেটে গেলেও সৌরভের কোনও খোঁজ দিতে পারেনি পুলিশ।
এদিন সকাল সাড়ে এগারোটা নাগাদ বাড়ির পাশের জঙ্গল থেকে সৌরভের ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার হতেই বুকফাটা কান্না নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন পরিবারের লোকেরা।
পুলিশের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলেছে সৌরভের পরিবারের লোক।
সৌরভের পরিবারের এক সদস্যের কথায়,জানা যায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাবেলায় বাজারের কাছে এক মহিলা জানান সৌরভকে পাচার করে দেওয়া হয়েছে। সন্দেহ হওয়ায় ওই মহিলাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। পরিবারের অভিযোগ, ওই মহিলার বিরুদ্ধে পুলিশ কোনও ব্যবস্থা না নিয়েই ছেড়ে দেয়। এই নিয়ে গত শুক্রবার সৌরভের পরিবারের লোকরা ও স্থানীয়রা থানার সামনে বিক্ষোভ দেখান। কিন্তু পুলিশ, সৌরভের পরিবারের আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এদিন মৃতদেহ উদ্ধার হতেই উত্তেজনা ছড়িয়েছে। পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয়রা। আপাতত পরিস্থিতি শান্ত। পুলিশ সমস্ত দিকই তদন্ত করে দেখছে, কি কারনে এই কাণ্ড ঘটলো। অপহরণ করার পর কি চিনে ফেলায় সৌরভকে খুন করা হলো.? এই সব প্রশ্ন সবার মনেই ঘুরপাক খাচ্ছে।

সৌরভকে হারিয়ে শোকে বিহ্বল বাড়ির সবাই।

এই বিষয়ে মতামত জানান আপনারা,…

রিপোর্টারঃ- মনীষা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here